July 16, 2024, 9:28 am

নোটিশ :

জরুরি ভিত্তিতে সারাদেশে জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে আগ্রহী প্রার্থীরা যোগাযোগ করুন।

সর্বশেষ সংবাদ : :
বাগমারায় নারী এনজিওকর্মীর ঘরে ঢুকে জোর করে আপত্তিকর ভিডিও ধারণ, তিন যুবক গ্রেপ্তার নাসিরনগরে মোবাইল কোর্টে ৪ লক্ষ টাকার রিংজাল পুড়িয়ে বিনষ্ট গোডাউন সিলগালাসহ ২০ হাজার টাকা জরিমানা পুঠিয়ায় পাটক্ষেতে কিশোরীকে ধর্ষণ, যুবক গ্রেপ্তার রাণীশংকৈলে এলজিইডি’র RERMP-3 নারী কর্মীর মাঝে ৯৫ লক্ষ্য ৬৫ হাজার ৬ শত টাকার সঞ্চয়ের চেক বিতরণ  রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক একীভূতকরণের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন রাজশাহীর বাঘায় ৬০০ পিচ ইয়াবাসহ আটক ১ মোহনপুরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বকুলের অভিষেক নাসিরনগরে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা অনুুষ্ঠিত পুঠিয়ায় মিটার চুরি! মালিকদের জিম্মি করে অর্থ আদায় এমপির তদারকিতে কয়েক’শ বিঘার ফসল রক্ষা পেলো
তিতাসে গৃহিণীর মৃত্যুতে ব্যাপক চাঞ্চল্য: পলাতক ছেলের লাত্থি ও চেয়ারের আঘাতে মৃত্যু, দাবি পরিবারের

তিতাসে গৃহিণীর মৃত্যুতে ব্যাপক চাঞ্চল্য: পলাতক ছেলের লাত্থি ও চেয়ারের আঘাতে মৃত্যু, দাবি পরিবারের

এস এ ডিউক ভূঁইয়া তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লার তিতাসের মঞ্জুরা বেগম (৬০) নামে এক গৃহিণীর মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।সামাজিক মাধ্যমে ও এলাকায় ভাইরাল হয়েছে প্রতিবেশীর কাছে থেকে কোরবানির গোস্ত আনার জেরে মা’কে লাত্থি মেরে ও চেয়ার দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে বড় ছেলে নবীর হোসেন। তবে পুলিশ বলছে নিহতের শরীরে তেমন কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। যেহেতু বিতর্ক হচ্ছে তাই বুধবার সকালে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে।গেলো মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার সাতানী ইউনিয়নের কালিরবাজার সংলগ্ন কৃষ্ণপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মঞ্জুরা বেগম ওই গ্রামের শান্তি মিয়ার স্ত্রী ও দ্বিতীয় সাতানী গ্রামের মৃত সোনা মিয়ার মেয়ে।পরিবার সূত্রে জানা যায়, মঞ্জুরা বেগম ও শান্তি মিয়ার সংসারে ২ছেলে ও ৩মেয়ে রয়েছে। এদের মধ্যে সবার বড় ছেলে নবীর হোসেন বাড়ীতে বাবা-মা’র কাছ থেকে আলাদা থাকে। ঈদের দিন প্রতিবেশী স্বজনদের বাড়ি থেকে কোরবানীর গোস্ত আনায় রাতে এ নিয়ে মা ও ছেলে নবীর হোসেনের মধ্যে তর্ক হয়। এক পর্যায়ে চেয়ার দিয়ে আঘাত করলে মঞ্জুরা বেগম মাটিতে লুটিয়ে পরে। এসময় পিতা শান্তি মিয়া বাঁধা দিতে গেলে তাকেও গলা ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। মাটিতে পরে থাকা মা অভিশাপ দিতে থাকলে, তলপেটে সজোরে লাত্থি মারে ছেলে নবীর হোসেন।এরপরই মঞ্জুরা বেগম অসুস্থ হয়ে পরে এবং তাকে উদ্ধার করে গত মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পর থেকেই পাষন্ড ছেলে নবীর হোসেন পলাতক রয়েছে বলে জানায় স্বজনরা।এদিকে থানা পুলিশ ঘটনা জানলেও তেমন কোন ভূমিকা ছিলো না বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।রাতভর ঘটনা ভিন্নখাতে নিতে স্ট্রোক করে মৃত্যু হয়েছে বলে একটা শ্রেণি দিয়ে সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল করে পাষন্ড ছেলের শ্বশুরবাড়ীর লোকজন। অন্য দিকে গৃহিনীর এমন মৃত্যুর খবরে এলাকাসহ সামাজিক মাধ্যমে নিন্দার ঝড় উঠে এবং বিতর্কিত মন্তব্য ও ঘৃণা জানিয়ে বিচার দাবি করেন সুশিল সমাজের মানুষেরা।পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মর্গে প্রেরণ করেন।নিহত মঞ্জুরা বেগমের মেঝো মেয়ে সাফিয়া বেগমসহ পরিবারের লোকজন জানায়, আমার মাকে হত্যা করেছে এটা ই সত্য। আমরা এ হত্যার বিচার চাই। আমরা আজকে (বৃহস্পতিবার) থানায় লিখিত অভিযোগ দিমু। পুলিশ মামলা না নিলে আমরা সাংবাদিকদের মাধ্যমে দেশবাসীর কাছে বিচার প্রার্থী হইমু।এলাকাবাসী জানায়, নবীর হোসেন অত্যান্ত খারাপ প্রকৃতির ছেলে।সে এর আগেও বহুবার তার মাকে মারধর ও বিশ্রি ভাষায় গাল মন্দ করেছে।গ্রাম পঞ্চায়েত কয়েকবার শালিশ করে সমাধানও দিয়েছে। এই হত্যার নিন্দা জানাই।এ বিষয়ে তিতাস থানার অফিসার ইনচার্জ কাঞ্চন কান্তি দাস সাংবাদিকদের  জানান, মৃত্যুর ঘটনায় বিভিন্ন মাধ্যমে বিতর্ক হওয়ায় আমরা লাশের ময়নাতদন্ত করেছি। তবে শরীরে তেমন কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে জানা যাবে মৃত্যুর কারণ।

 

সংবাদটি শেয়ার করতে ক্লিক করুন




© All rights reserved © 2020 alokitobhorerbarta.com

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com